Top 10 Govt. Hospital in Dhaka

Top 10 Govt. Hospitals in Dhaka

ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্র বাংলাদেশের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। প্রশাসনিকভাবে এটি ঢাকা বিভাগের ও জেলার প্রধান শহর। ভৌগোলিকভাবে এটি বাংলাদেশের মধ্যভাগে বুড়িগঙ্গা নদীর উত্তর তীরে একটি সমতল অঞ্চলে অবস্থিত। ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ায় মুম্বাইয়ের পরে দ্বিতীয় বৃহৎ অর্থনৈতিক শহর। ভৌগোলিকভাবে ঢাকা একটি অতিমহানগরী বা মেগাসিটি; ঢাকা মহানগরীর মোট জনসংখ্যা প্রায় ২ কোটি ১০ লক্ষ। জনসংখ্যার বিচারে ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম শহর। ঢাকা শহর “মসজিদের শহর” নামেও সুপরিচিত। এখানে প্রায় দশ হাজারেরও বেশি মসজিদ আছে। বর্তমানে ঢাকা দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম প্রধান সংস্কৃতি, শিক্ষা ও বাণিজ্যকেন্দ্র। ঢাকা শহরে প্রচুর আধুনিক ও মানসম্মত হাসপাতাল রয়েছে, তন্মধ্য হতে সেরা সরকারি হাসপাতালগুলো সম্পর্কে নিম্নে সংক্ষেপে বর্ণনা করা হয়েছে।

আসুন আমরা Top 10 Govt. Hospitals in Dhaka সম্পর্কে জেনে নিই।

  Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University (BSMMU) / (PG)

Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University (BSMMU)

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)এর অবস্থান হলো ঢাকা শাহবাগে। এটি স্থাপিত হয়েছে ১৯৬৫ সালে। এটি  বাংলাদেশের একমাত্র মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় পেডিয়াট্রিক হেমাটোলজি সেন্টার।  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের সেরা সরকারি হাসপাতাল। এই হাসপাতালটি সাশ্রয়ী মূল্যে চমৎকার ডায়াগনস্টিক পরিষেবা সরবরাহ করে। নিঃসন্দেহে এটি বাংলাদেশের সেরা হাসপাতালগুলোর একটি।

  Super Specialized Hospital, BSMMU

Super Specialized Hospital, BSMMU

সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল (বিএসএমএমইউ ), প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  সেপ্টেম্বর, ২০২২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল উদ্বোধন করেছেন। এটি দেশের প্রথম সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল। কম খরচে বিশেষায়িত চিকিৎসা প্রদানের লক্ষ্যে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি এবং আধুনিক অপারেশন থিয়েটার রয়েছে।  হাসপাতালটি যেকোন সরকারী বা বেসরকারী হাসপাতাল বা চিকিৎসক  দ্বারা রেফার করা সমস্ত গুরুতর রোগীদের চিকিৎসা প্রদান করে। প্রতিদিন প্রায় ৫০০০-৮০০০ রোগী হাসপাতালে আউটডোর পরিষেবা পেয়ে থাকেন। এই বিশেষায়িত হাসপাতালটি চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পছন্দকারী অনেক বাংলাদেশীর জন্য একটি বিকল্প হবে।

  Dhaka Medical College Hospital

Dhaka Medical College Hospital

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (DMCH), ঢাকার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। এটি একটি প্রাচীনতম  হাসপাতাল। এই হাসপাতালটি ১৯৪৬ সালের ১০ জুলাই ব্রিটিশ ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর জন্য ২০০ শয্যা বিশিষ্ট ফিল্ড হাসপাতাল হিসাবে যাত্রা শুরু করে। এই হাসপাতালের প্রথম সুপারিনটেনড ছিলেন ব্রিটিশ মেজর ডব্লিউজে ভার্জিন এমআইএস। ১৯৭১ সালের ছাত্র মুক্তিযুদ্ধ এবং ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন সহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সাথে এটির একটি গৌরবময় অতীত রয়েছে। প্রতিদিন বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সব ধরনের রোগীদের উন্নত ব্যবস্থাপনার জন্য এই হাসপাতালে রিপোর্ট করা হয়। এই হাসপাতালে চিকিৎসা বিজ্ঞানের সমস্ত বিশেষত্ব/সাব-স্পেশালিটি রয়েছে। প্রায় সব ধরণের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা এখানে পাওয়া যায়.

  Sir Salimullah Medical College Mitford Hospital

Sir Salimullah Medical College Mitford Hospital

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল (SSMCMH), মিটফোর্ড রোড, ঢাকা। স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল দেশের প্রাচীনতম হাসপাতাল, এটি ১লা মে ১৮৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং মাত্র ৩২ জন রোগী নিয়ে ঢাকার মিটফোর্ড মেডিকেল স্কুলে এর কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। সময়ের পরিক্রমায় এটিকে ৬০০ শয্যা বিশিষ্ট তৃতীয় পর্যায়ের হাসপাতালে উন্নীত করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে শুধুমাত্র দুটি বিভাগ ছিল, মেডিসিন ও সার্জারি। বর্তমানে এখানে সিসিইউ, আইসিইউ এবং এনআইসিইউ সুবিধা সহ ৩১টি বিভাগ রয়েছে। বর্তমানে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বিশেষ করে পুরান ঢাকা ও বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল থেকে আসা বিপুল সংখ্যক রোগীকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করছে।

  Shaheed Suhrawardy Medical College and Hospital

 Shaheed Suhrawardy Medical College and Hospital

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ (ShSMCH ), এটি ঢাকার উত্তর-পশ্চিম অংশে জাতীয় সংসদ ভবনের পাশে অবস্থিত, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের দীর্ঘ ঐতিহ্য রয়েছে এবং অনেক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানকে প্রতিষ্ঠা ও বিকাশের জন্য পৃষ্ঠপোষকতার একটি গর্বিত ইতিহাস রয়েছে। বিশিষ্ট এবং অভিজ্ঞ ডাক্তারদের মাধ্যমে উচ্চ-মানের চিকিৎসা এবং মানসম্পন্ন চিকিৎসা প্রদানের জন্য হাসপাতালটি  প্রতিশ্রুতি বদ্ধ।শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালটি ১৯৬৩ সালে পূর্ব পাকিস্তানের সময়কালে আইয়ুব হাসপাতাল হিসাবে আউটডোর পরিষেবার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এটি প্যাথলজিকাল এবং রেডিওলজিক্যাল সাপোর্ট দিয়ে সজ্জিত ছিল। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে  মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতার পর গণতন্ত্রের জীবন্ত সন্তান, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নামের বিপরীতে হাসপাতালটির নামকরণ করা হয় শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল। বিখ্যাত স্থপতি লুই আই কান দ্বারা ডিজাইন করা এই হাসপাতালের চমৎকার স্থাপত্য সৌন্দর্য রয়েছে।

  Dhaka Shishu Hospital

Dhaka Shishu Hospital

ঢাকা শিশু হাসপাতাল, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শিশু হাসপাতাল। এটি ৬৫০ শয্যা বিশিষ্ট শিশুদের জন্য একটি সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত হাসপাতাল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার কয়েক মাস পর ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে প্রতিষ্ঠিত হয়। কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এবং বাংলাদেশ সরকারের সহায়তায়, এটি প্রথমে ঢাকার ধানমন্ডিতে একটি ব্যক্তিগত বাড়িতে ৫০টি  ইনডোর বেড দিয়ে তার পরিষেবা শুরু করে। ঢাকার সুক্রাবাদের কাছে একটি তাঁবুতে একই সময়ে হাসপাতালের বহিরাগত রোগী বিভাগ (ওপিডি) শুরু হয়। শুরুতে ‘সেভ দ্য চিলড্রেন ফান্ড ইউকে’ থেকে ক্রমাগত আর্থিক সহায়তা পাওয়া যায়। এবং পরে “World Vision, Bangladesh” থেকে পায় । ১৯৭৪ সালের ডিসেম্বরে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে একটি ২৫০ শয্যার শিশু হাসপাতাল নির্মাণ এর ব্যাপারে বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) একটি প্রকল্প অনুমোদন করে। যা ৫০০ শয্যায় সম্প্রসারণযোগ্য। পরবর্তীকালে, ১৯৭৫ সালের মার্চ মাসে, বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনে, প্রকল্পের স্থানটি ঢাকার শের-ই-বাংলানগর , শ্যামলীতে নির্ধারণ করা হয়। বর্তমান হাসপাতালটি ওই জায়গাতেই অবস্থিত।

  Kurmitola General Hospital

Kurmitola General Hospital

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, এটির  নির্মাণ কাজ ২০০৪ সালে শুরু হয় এবং ২০১১ সালে শেষ হয়। এটিকে  ১৩ মে ২০১২ সালে উদ্বোধন করেন  বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হাসপাতালটি  আশেপাশের এলাকার সড়ক দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিদের জরুরী ও জীবন রক্ষাকারী চিকিৎসা-সেবা প্রদান করে , ইন্টার্নীদের “চাকরির প্রশিক্ষণ” প্রদান করে এবং AFMC এবং AFMI এর ক্যাডেটদের ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ প্রদান করে। হাসপাতালটি আর্মড ফোর্স মেডিকেল কলেজের শিক্ষালয় হিসেবে কাজ করে। এটি ঢাকার একটি শীর্ষ হাসপাতাল।

  National Institute of Cardiovascular Diseases (NICVD)

National Institute of Cardiovascular Diseases (NICVD)

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজেস (NICVD) ,বাংলাদেশে কার্ডিওভাসকুলার রোগের চিকিৎসার জন্য একটি রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান। ইনস্টিটিউটটি ১৯৭৮সালে দেশে আধুনিক কার্ডিওভাসকুলার কেয়ার পরিষেবা প্রতিষ্ঠা এবং দেশের প্রয়োজনে  প্রশিক্ষিত জনশক্তি গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কার্ডিয়াক রোগীদের জন্য সম্ভাব্য সর্বোত্তম পরিষেবা এবং যত্ন প্রদানের পাশাপাশি, ১৯৮২ সালের জুলাই মাসে এই ইনস্টিটিউটে ডাক্তারদের জন্য স্নাতকোত্তর মেডিকেল কোর্স চালু করা হয়েছিল। বর্তমান এখানে উন্নতমানের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়।

  Mugda Medical College and Hospital

Mugda Medical College and Hospital

মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকায় অবস্থিত সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোর মধ্যে অন্যতম।  ইহা ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল হিসাবে ২০১৩ সালের জুলাই মাসে উদ্বোধন হয়। ২০১৫ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রী হাসপাতালটিকে মেডিকেল কলেজ ঘোষণা করেন। ঢাকা শহরের পূর্বাঞ্চলে বসবাসকারী প্রায় ৩০-৪০  লক্ষ মানুষের, এবং ঢাকা জেলার পার্শ্ববর্তী জেলাসমূহের বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা ও মানসস্মত আধুনিক চিকিৎসক তৈরি  করার লক্ষ্যে  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক ইচ্ছায় প্রতিষ্ঠিত এই মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, বর্তমানে দেশজুড়ে সুনামের সাথে এগিয়ে চলছে। এই প্রতিষ্ঠান থেকে দেশের দরিদ্র জনগণ নাম মাত্র সরকারী ব্যয়ে, সর্বোচ্চ ও সর্বোত্তম স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করে যাচ্ছে। নিয়মিত ইনডোর,  আউটডোর, জরুরী সেবা, অপারেশন,  বিশেষায়িত চিকিৎসা, মান সম্মত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ইত্যাদি উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে।

  Kuwait Bangladesh Friendship Govt. Hospital

Kuwait Bangladesh Friendship Govt. Hospital

কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতাল,এটি কে ১০ জুন ২০০১ সালে , প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন। হাসপাতালটি ঢাকার উত্তরায় অবস্থিত। এটি ঢাকার শীর্ষস্থানীয় সরকারি একটি হাসপাতাল। এই হাসপাতালে স্বনামধন্য স্বাস্থ্যকর্মীগণ রয়েছেন । অত্যাধুনিক মানের অপারেশন থিয়েটার এর ব্যবস্থা রয়েছে। সর্বস্তরের মানুষ এখানে গ্রাম ও শহর থেকে উচ্চমানের চিকিৎসা সেবা নিতে আসেন। সকল ডাক্তার এবং নার্স অত্যন্ত অভিজ্ঞ এবং দক্ষ।